HSC Islamic History Assignment 2021 6th Week Answer

HSC 2021 Islamic History and Culture Assignment Answer: Directorate of Secondary and Higher Secondary Education is published the Inter 1st Year HSC Islamic History and Culture 1st and 2nd Paper Assignment Answer 2021 in pdf file on dshe.gov.bd.

The 1st, 2nd and 3rd Week Assignment for HSC Islamic History and Culture is published on 26th July, 2021. The 4th Week Assignment was publish on 18th August 2021. The HSC Assignment 2021 History Answer, Question, Work, Solutions of first and second paper are available at dshe.gov.bd.

The 6th Week Assignment for Islamic History and Culture 2021 Question with answer is published on 31st August 2021.

DSHE is going to the publish the 12th Week HSC Assignment Program for Islamic history and culture in 1st, 2nd, 4th, 6th, 7th, 9th, 10th, 12th, 13th, 15th Week.

HSC 2nd Week Islamic History and Culture Assignment Answer

DSHE will published the 5 Assignment in total for Islamic History and Culture Second Paper. DSHE is going to publish the HSC 2nd Paper Islamic History and Culture Assignment Work in these following weeks:

2nd Week6th Week9th Week12th Week15th Week

HSC Islamic History 2021 6th Week Answer

Class: HSC 1st Year
Exam Year: HSC 2021
Group: Humanities
Subject: Islamic History and Culture
Paper: 2nd Paper

Week: 6th Week
Assignment Answer:

The students need to write the assignment with these following information:

  • a) Explaining Pakistan’s political discrimination against East Bengal.
  • b) Analyze with statistics the administrative and military discriminations between East and West Pakistan
  • c) Discussing comparative pictures of the socio-economic discriminations between East and West Pakistan.
  • d) Discussing the areas of discrimination in educational and cultural developments of East Bengal.

2nd Week HSC Islamic History and Culture Assignment Answer (2nd paper)

Class: HSC 1st Year
Exam Year: HSC 2021
Group: Humanities
Subject: Islamic History and Culture
Assignment work: প্রাক ইসলামী যুগে শহরবাসী ও মরুবাসী যাযাবরদের জীবনে আর্থ-সামাজিক রাজনৈতিক ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক অবস্থা প্রভাবসমূহ তুলনামূলক বিশ্লেষণ উপস্থাপন করো।

Learning Outcomes:

ইসলাম পূর্ব যুগে আরব জীবন-যাত্রার রাজনৈতিক সামাজিক ধর্মীয় ও অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অবস্থার বর্ণনা দিতে পারবে

Instruction to students for writing the assignment answer:

  • প্রাক ইসলামী যুগে শহরবাসী ও মরুবাসী আরবদের অর্থ সামাজিক জীবনযাত্রা পার্থক্য নিরূপণ করো
  •  প্রাক ইসলামী যুগের রাজনৈতিক অবস্থার ব্যাখ্যা
  •  প্রাক ইসলামী যুগে ধর্মীয় বিশ্বাসের বিশ্লেষণ করো
  •  প্রাক ইসলামী যুগে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মূল্যায়ন করা
  •  প্রাক ইসলামী যুগে উৎকৃষ্ট গুণাবলী ও দৃষ্টিভঙ্গির মূল্যায়ন করো 
HSC 2021 Islamic History and Culture Assignment Answer

Answer:

HSC 2021 Islamic History and Culture Assignment Answer (1st Paper)
1st Week HSC 2021 Islamic History and Culture Assignment Answer
HSC Islamic History Assignment Answer 2021
HSC  Islamic History and Culture Assignment Answer 2021

HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 (2nd Paper)

DSHE will publish the HSC Islamic History and Culture Assignment Work on

Class: HSC 1st Year
Exam Year: HSC 2021
Group: Humanities
Subject: Islamic History and Culture 2nd Paper
Assignment work: ভারতে মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠার সময় পরিক্রমা অনুযায়ী উল্লেখযোগ্য ঘটনাবলীর সংক্ষিপ্ত বিবরণ সহ একটি পোস্টার পেপার তৈরি করো। 

Learning outcomes:

  • মুহাম্মদ বিন কাসিমের সিন্ধু ও মুলতান বিজয়ের কারণ ও ফলাফল বিশ্লেষণ করতে পারবে
  • সুলতান মাহমুদের ভারত অভিযানের উদ্দেশ্য ও ফলাফল মূল্যায়ন করতে পারবে
  • মুইজউদ্দিন মুহাম্মদ ঘুরী কর্তৃক ভারত উপমহাদেশে মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠার সংশ্লিষ্ট ঘটনাবলী বর্ণনা করতে পারবে। 

Instruction to Students for writing the assignment answer:

  •  মুহাম্মদ বিন কাসিমের অভিযানের কারণ বর্ণনা করো
  •  সুলতান মাহমুদের ভারত অভিযানের উদ্দেশ্য ও ফলাফল বিশ্লেষণ
  •  মহিউদ্দিন মুহাম্মদ ঘুরীর অভিযান পূর্ব ভারতের রাজনৈতিক অবস্থার বিবরণ
  •  উল্লেখযোগ্য ঘটনাবলী সম্বলিত পোস্টার তৈরিকরণ 
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021

Answer:

ভারতে মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠার সময় পরিক্রমা অনুযায়ী উল্লেখযোগ্য ঘটনাবলী সংক্ষিপ্ত বিবরণসহ একটি পোষ্টার পেপার তৈরি করা হলোঃ 

মুহাম্মদ বিন কাসিমের অভিযানের কারণঃ 

তৎকালীন ভারতের সিন্ধু ও মুলতানের রাজা ছিলেন দাহির। আরব সাম্রাজের পূর্বাঞ্চল অর্থাৎ ইরাক প্রদেশের গভর্নর ছিলেন হাজ্জাজ বিন ইউসুফ। সিন্ধু ও মুলতানের সাথে আরব শাসনের সাধারণ সীমান্ত ছিল। নানা কারণে হাজ্জাজ বিন ইউসুফ ও রাজা দাহিরের মধ্যে মতপার্থক্য হয়। এ কারণে হাজ্জাজ বিন ইউসুফ ভারতের সিন্ধু জয় করার জন্য তার জামাতা ও ভাতুষ্পুত্র মুহম্মদ বিন কাসিমের নেতৃত্বে ৭১২  খ্রিস্টাব্দে এক বিজয় অভিযান প্রেরণ করেন। 

পরোক্ষ ও প্রত্যক্ষ কারণসমূহঃ 

সিন্ধু বিজয়ের পরোক্ষ কারণ সোমবারের মধ্যে ছিল অর্থনৈতিক রাজনৈতিক ও ধর্মীয় কারণ এবং প্রত্যক্ষ কারণের  মধ্যে ছিল জলদস্যুদের দ্বারা আরব বণিকদের জাহাজ লুন্ঠন। 

অর্থনীতি, রাজনীতি এবং ধর্মীয় কারণ গুলো হলোঃ 

ভারতে ধন- ঐশ্বর্যের জন্য বিখ্যাত ছিল। আরবদের সিন্ধু অভিযানের অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল ভারতের বৃহত্তম রাজ্য আসাম রাজ্যের মধ্যে সীমান্ত অভিন্ন হওয়ায় দুই রাজ্যের মধ্যে প্রায় মতানৈক্য মতবিরোধ সৃষ্টি হতো এবং সীমান্ত সংঘর্ষ লেগেই থাকত।  হাজ্জাজ বিন ইউসুফ ছিলেন গঠন প্রকৃতির শাসক। আইনের শাসন এড়িয়ে হাজ্জাজেএর অঞ্চল থেকে অনেক অপরাধী রাজা দাহিরের রাজ্যে  আশ্রয় নিয়েছিল। এ সকল কারণে রাজনৈতিক তিক্ততা উত্তোরত্তর বাড়তে থাকে। এসময় সিন্ধুতে চলছিল রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা। দাহির  ছিলেন অত্যাচারী শাসক।  নিম্নশ্রেণির লোকেরা ছিল অত্যাচারিত, বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের কোন রাজনৈতিক অধিকার ছিল না। 

সুতরাং এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে হাজ্জাজ সিন্ধু জয় করে সাম্রাজ্যের বিস্তার ঘটাতে চেয়েছিলেন। ভারতে ইসলাম প্রচার করাও হাজ্জাজ  আরেকটি উদ্দেশ্য ছিল।

সুলতান মাহমুদের ভারত অভিযানের উদ্দেশ্য ও ফলাফলঃ 

রাজনৈতিক কারণঃ 

 সুলতান মাহমুদের পিতা সবুক্তগীন এর সময় থেকে গজনির  সাথে পাঞ্জাবের হিন্দু শাহী বংশের বিরোধ চলছিল।  পাঞ্জাবি হিন্দু শাহী রাজ্যের রাজা জয়পাল সবুক্তগীন এর শত্রু হওয়ায়  সুলতান মাহমুদ জয়পালের সাথে শত্রুতা উত্তরাধিকার সূত্রেই পেয়েছিলেন। 

ভারতের অনেক রাজা জয়পালের সাথে মাহমুদ বিরোধী জোটে যোগদান করেন। সুতরাং মাহমুদকে তাদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করতে হয়।  আবার ভারতের কোন কোন রাজা মাহমুদের সাথে বন্ধুত্ব সূত্রে আবদ্ধ হয়।  এতে তাদের প্রতিবেশী রাজন্যবর্গ তাদের প্রতি বৈরী আচরণ শুরু করেন।  মিত্রবর্গের  স্বার্থ সংরক্ষণের জন্যও মাহমুদকে ভারতে অভিযান করতে হয়। পরাজিত রাজারা মাহমুদের সাথে সন্ধি করেন।  তাদের মধ্যে কেউ কেউ সুযোগ পেয়ে সন্ধির শর্ত ভঙ্গ করেন।  বিদ্রোহী রাজাদের সন্ধির শর্ত পালনে বাধ্য করার জন্য মাহমুদকে অভিযান করতে হয়। 

অর্থনৈতিক কারণঃ 

 সুলতান মাহমুদ রাজধানী গজনিকে তিলোত্তমা নগরীতে পরিণত করতে চেয়েছিল। তিনি ছিলেন জ্ঞানীগুণী পৃষ্ঠপোষক। তার ছিল একটি অত্যন্ত শক্তিশালী সৈন্যবাহিনী। তিনি দক্ষ  প্রশাসন ব্যবস্থা গড়ে তোলেন। এসবের জন্য তার প্রচুর অর্থের প্রয়োজন ছিল।  তখন ভারত ছিল সম্পদশালী দেশ।  এখানকার বিভিন্ন রাজ্যের কোষাগার ধনরত্ন পূর্ণ ছিল।  ধর্মপ্রাণ বিত্তশালী ব্যক্তি বর্গ অকাতারের মন্দিরগুলোতে দান করত। মন্দির কে নিরাপদ বিবেচনা করে অনেক সময় রাজারাও তাতে ধনরত্ন সংরক্ষণ করতেন। সুতরাং স্বাভাবিকভাবেই সুলতান মাহমুদের নজর ভারতের উপর পড়ে। এজন্য তিনি প্রায় প্রতি বছর ভারতে অভিযান প্রেরণ করেন এবং ভারত থেকে প্রচুর ধন রত্ন নিয়ে নিজ দেশে ফিরে যান। প্রফেসর হাবিব,  প্রফেসর নাজিম ও হেইগ প্রমুখ আধুুনিক ঐতিহাসিকগণ সুলতান মাহমুদের ভারত অভিযানের কারণ হিসেবে অর্থনৈতিক কারণ কে অধিকতর গুরুত্ব দিয়েছেন।  তাই বলে মাহমুদকে লুণ্ঠনকারী বা অর্থলোলুপ বলা যাবে না। কারণ ভারত থেকে সংগৃহীত অর্থ তিনি মানব কল্যাণে ব্যয় করেন।  নিজের ভোগবিলাসের জন্য তিনি সেই অর্থ ব্যবহার করেনি। 

সামরিক উদ্দেশ্যঃ 

 সুলতান মাহমুদের ভারত অভিযান এর রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক কারণের পাশাপাশি সামাজিক উদ্দেশ্য ছিল। তারা রাজ্যের নিরাপত্তার জন্য উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ, পাঞ্জাব সিন্ধু দখল করা অত্যন্ত প্রয়োজন ছিল। এসব অঞ্চল ছিল সামরিক দিক দিয়ে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দক্ষ সমরবিদ হিসেবে তার অশ্বারোহী ও পদাতিক বাহিনী ছিল সুশৃংখল ও সমরনিপুন। তিনি বুঝতে পারেন এসকল অঞ্চল জয় করতে তাকে খুব একটা বাধার সম্মুখীন হতে হবে না। সুতরাং তিনি বার বার ভারত আক্রমণ করে তার সামরিক উদ্দেশ্য হাসিল করেছিলেন। 

ধর্মীয় উদ্দেশ্যেঃ 

 সুলতান মাহমুদ এর ভারত অভিযানের পশ্চাতে কোন কোন ঐতিহাসিক ধর্মীয় উদ্দেশ্য কার্যকর ছিল বলে অনেকে মনে করেন।  তাদের মতে তিনি ভারতে ইসলাম প্রচারে অভিলাষী ছিলেন।  কিন্তু আধুনিক ঐতিহাসিকগণ এই মত সমর্থন করেন না। তারা মনে করেন মাহমুদ এর যুগে শাসকগণ ইসলাম প্রচার করা যেমন কর্তব্য বলে মনে করতেন না। তিনি ভারত অভিযানে এসে কোন বিধর্মীকে বলপূর্বক  ইসলাম ধর্ম গ্রহণে বাধ্য করেনি। এছাড়া মাহমুদ হিন্দু মন্দির দখল করেছেন ধর্ম বিদ্বেষের কারণে নয় বরং অর্থ পাওয়ার আশায়।  এই সকল মন্দির ছিল যুগ যুগ ধরে সঞ্চিত সম্পদে পূর্ণ। সর্বোপরি তাঁর সেনাবাহিনীতে হিন্দু সৈন্যের উপস্থিতি তার ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্য কে অনুমোদন করে না। 

সুলতান মাহমুদের ভারত অভিযান এর ফলাফলঃ 

সুলতান মাহমুদের ভারত অভিযান এর প্রভাব সমগ্র উত্তর পশ্চিম ভারতে অনুভূত হয়। রাজনৈতিক ক্ষেত্রে এ অভিযানের প্রভাব ছিল ব্যাপক।  সুলতান মাহমুদ অভিযান করেছেন,  জয়লাভ করেছেন এবং ধন-সম্পদ নিয়ে নিজের রাজ্যে গজনিতে ফিরে গিয়েছেন। শুধু পাঞ্জাবে কিয়দংশ এবং মুলতান ছাড়া ভারতের কোন অঞ্চল তার সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত করেন নি এবং কোন স্থায়ী সাম্রাজ্যও  প্রতিষ্ঠা করেন নি। কয়েকজন রাজা অবশ্য তাকে কর দিতে বাধ্য হয়েছিলেন।  কিন্তু ১০৩০ খ্রিস্টাব্দে তার মৃত্যুর সাথে সাথে এই সকল রাজা কর প্রদান বন্ধ করেন। তবে একথাও সত্য যে সুলতান মাহমুদের বিজয় স্থায়ী না হলেও তার বিজয় পরবর্তীকালে মুসলমানদের ভারত বিজয় পথ সুগম করেছিল। সুলতান মাহমুদের ভারত আক্রমণ উত্তর ভারতের রাজন্যবর্গের সামরিক শক্তি দুর্বল করে দিয়েছিল।  সামরিক ও অর্থনৈতিক দিক থেকে একেবারে দুর্বল হয়ে পড়েছিলেন বলে পরবর্তী মুসলমান আক্রমণ প্রতিহত করা সম্ভবপর হয়নি। সুলতান মাহমুদের অভিযানের সময় ভারতীয় সীমাশক্তি ও রণকৌশল মুসলমানদের সামরিক শক্তি ও রণকৌশলে তুলনায় যে কত দুর্বল তা প্রকটভাবে ধরা পড়ে। মাহমুদ ভারতের সমৃদ্ধ জনপদ নগর দুর্গ মন্দির আক্রমণ করেন ধনরত্ন লাভ করার জন্য। এইজন্য এসকল লক্ষ্যস্থল থেকে তিনি প্রচুর সম্পদ নিজ রাজধানী গজনিতে নিয়ে যান। এর ফলে ভারত অর্থনৈতিক দিক থেকে দুর্বল হয়ে পড়ে। অপরদিকে গজনির অর্জন সামরিক শক্তি ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলে।  অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে  সুলতান মাহমুদের ভারত অভিযানের ফলাফল ছিল লক্ষণীয়।তিনি ভারতীয় পন্ডিত এর নিকট ভারতের দর্শন সমাজ ব্যবস্থা ও কৃষি সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করেন।  এরফল স্বরুপ  তিনি তাঁর বিখ্যাত গ্রন্থ- কিতাব-উল-হিন্দ প্রণয়ন করেন। গ্রন্থটি ভারতের ইতিহাসের অমূল্য উপকরণ।  মাহমুদের অভিযানের ফলে ইসলামী সভ্যতা ও ভারতীয় সভ্যতার মধ্যে ভাব বিনিময় ঘটে। 

মহিউদ্দিন মুহাম্মদ ঘুরীর অভিযান পূর্ব ভারতের রাজনৈতিক অবস্থাঃ 

আফগানিস্তান কাশ্মীর ও কনৌজঃ 

মৌর্য বংশের শাসন আমল থেকেই আফগানিস্তান ছিল ভারতের একটি অংশ। মুসলিম ঐতিহাসিকগণ এটিকে হিন্দু শাহী রাজ্য বলে অভিহিত করেন। সপ্তম শতাব্দীতে কটকট রাজবংশীয় দুর্লভ বর্ধনের অধীনে কাশ্মীর ছিল উত্তর ভারতের অপর একটি স্বাধীন রাজ্য। তিনি কৌনজ কামরূপ কলিঙ্গ গুজরাট জয় করেন বলে জানা যায়। কর্কট বংশের অপর একজন  শাসক জয়পীড় গেরৈ ও কনৌজ এর নৃপতিদের পরাজিত করেন। অষ্টম শতাব্দীর প্রথমদিকে কনৌজ ভারতীয় উপমহাদেশে সর্বাধিক গুরুত্ব পূর্ণ রাজ্য হিসেবে পরিগণিত হতো। তিনি গৌর জয় এর রাজা কে হত্যা করেন এবং কাশ্মীর রাজ ললিতাদিত্যেল সহায়তায় তিব্বত অভিযান করেন। তিনি চীনে দূত  প্রেরণ করেন। কাশ্মীরের রাজা ললিতাদিত্যে কর্তৃক  তিনি পরাজিত ও নিহত হন। যশোবর্মন সিন্ধুরাজ দাহিরের সমসাময়িক ছিলেন। অতঃপর অষ্টম শতকের প্রথম দিকে কনৌজে গুরজর প্রতিহার রাজবংশের আধিপত্য প্রতিষ্ঠিত হয়। 

সিন্ধু ও মালব – দিল্লি ও আজমীর ঃ 

সপ্তম শতকে সিন্দু ছিল হর্ষবর্ধনের সাম্রাজ্যভুক্ত। পরবর্তীতে চার্চ নামক সিন্দুর জৈনিক ব্রাহ্মণ মন্ত্রী হিন্দুদের স্বাধীন রাজবংশের গোড়াপত্তন করেন। চাচের পুত্র  রাজা দাহির কে পরাজিত করে ইমাদ উদ্দিন মুহাম্মদ বিন কাসিম ৭১২  সালে মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। তবে এ রাজ্য দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। প্রতিহার রাজপুতদের দ্বারা শাসিত মালব ছিল উত্তর ভারতের একটি শক্তিশালী রাষ্ট্র। উজ্জয়িনী ছিল এ রাজ্যের রাজধানী। দ্বাদশ শতকে মুসলিম অভিযানের প্রাক্কালে দিল্লি আজমির শক্তিশালী চৌহান বংশীয় রাজপত্রগণ  রাজত্ব রাজত্ব করত। 

গুজরাট আসাম ও নেপালঃ 

 মুসলিম বিজয়ের প্রাক্কালে গুজরাট ছিল গুর্জর প্রতিহার বংশের অধীনে। অতঃপর তাদের আধিপত্য ক্ষুন্ন করে চালক ও ভাগেলা বংশ পর্যায়ক্রমে শাসন করে। নবম শতাব্দীতে চান্দেলা বংশ বুন্দেলখন্ড এক স্বাধীন রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন। শেষ রাজা গণ্ড ১০১৯ খ্রিঃ  সুলতান মাহমুদের নিকট পরাজিত হয়। ভারতীয় উপমহাদেশের উত্তর-পূর্ব প্রান্তসীমায় অবস্থিত একটি রাজ্য হল আসাম। এটি হর্ষবর্ধনের মৃত্যুর পর সম্পূর্ণ স্বাধীন হয়।  এসময় রাজা শশাঙ্ক ছিলেন বাংলার স্বাধীন নৃপতি। হর্ষবর্ধনের সমসাময়িক শাসকের মৃত্যুর পরে বাংলায় মারাত্মক গোলযোগ ও বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। 

HSC 2021 Islamic History and Culture Assignment Answer (1st Paper)

DSHE is published the HSC Humanities Group Islamic History and Culture Assignment Answer of the 1st and 2nd Paper on dshe.gov.bd.

DSHE will publish the HSC History and Culture 1st Paper Assignment in these following weeks:

1st Week4th Week7th Week10th Week13th Week

HSC 4th Week Islamic History and Culture Assignment Answer

Class: HSC 1st Year
Exam Year: HSC 2021
Group: Humanities
Subject: Islamic History and Culture
Week: 4th Week

HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 1
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 2
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 3
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 4
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 5
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 6
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 7
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 8
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 9
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 10
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 11
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 12
HSC Islamic History and Culture Assignment Answer 2021 4th Week  page 13

For More Information, Visit: DSHE. In addition, students may want to find the Other Humanities Group Subjects Assignment Answer. It is listed below:

Source: DSHE

About Team Exam Result Hub

Team Exam Result Hub is consists of experienced content creator, writer and blogger who are passionate about providing information regarding exam result, jobs result, admission and education news in Bangladesh.

1 thought on “HSC Islamic History Assignment 2021 6th Week Answer”

Leave a Comment